ফিলিস্তিন মুসলমানদের উপর ইজরাইলের বর্বর হামলার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী মানববন্ধন

0
187

সৈয়দা রোকসানা পারভীন(রুবি) : কুমিল্লা দেবিদ্বার উপজেলার ৩নং রসুল পুর ইউনিয়নের নোয়া পাড়ার কৃতি সন্তান সৌদি আরব প্রবাসী মোঃআরিফুল ইসলামের সহযোগিতায় ফিলিস্তিন মুসলমানদের উপর ইজরাইলের বর্বর হামলার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।সিএম বি স্টেশন চট্টগ্রাম ও সিলেট মহাসড়কের পাশে মুসলিম জনতা অবস্থান করেন।

উক্ত মানববন্ধনের সভাপতিত্ব করেন মোঃ মাছুম বিল্লা রসুল পুরী রসুল পুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রসুল পুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান সৈয়দ এমরানুর রহমান শিক্ষানুবিশ আইনজীবী,জজ কোর্ট কুমিল্লা, এবং রসুল পুর ইউনিয়নের কৃতি সন্তান মারুফ বিল্লা।
এই সময় রসুল পুর ইউনিয়নের সর্বস্তরের মুসলিম জনতার বন্ধ হয়।সকলই এক সাথে স্লোগানে কম্পিত কণ্ঠে বলে উঠে নারে তাকবির আল্লাহু আকবর, ইজরাইলি পন্য বয়কট করো করতে হবে।সমস্ত মুসলিম জাতি ভাইদের এক হওয়ার জন্য আকুতি জানায় উপস্থিত মুসলিম জনতারা।এসময় সভাপতি ও বিশেষ ব্যক্তিগন বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যে বলা হয় ইজরাইলিরা ফিলিস্তিনি মুসলিম ভাইদের উপর অন্যায় ভাবে নির্যাতন চালাছে,শিশুদের হত্যা করা হচ্ছে, মুসলমানদের তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থান আল-আক্বসা
কে রক্ষা করতে হবে এটা হলো সকল মুসলমান ভাইদের ঈমানী দায়িত্ব। যায় যার স্থান থেকে প্রতিরুদ্ধ,প্রতিবাদ গড়ে তুলতে হবে।
ফিলিস্তিন মুসলমানদের ভাষা তুলে ধরা হয় বক্তব্যের মধ্য দিয়ে “হে আল্লাহ, তুমি তো সবকিছু দেখছো। তারা মসজিদে প্রবেশ করবে মৃত লাশের উপর দিয়ে। হে আল্লাহ,হয় আমরা না হয় তারা! আক্বসা আমাদের,আক্বসার প্রতি তাদের কোনো অধিকার নেই।”
আল-আক্বসা, মুসলমানদের প্রথম কিবলা। কিভাবে মুসলমানরা ছেড়ে দেবে এই ভূমি? শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও রক্ষা করবে তারা।
আল-আক্বসা, যে পবিত্র ভূমির কথা আল্লাহ নিজে বর্ণণা করেছেন পবিত্র কুরআনে। সেই ভূমি কিভাবে পথভ্রষ্টদের হাতে তুলে দেবে মুসলমানরা?
আল্লাহ নিজে প্রতিজ্ঞা করেছেন, ” কেউ অণু পরিমাণ সৎ কর্ম করলে তার প্রতিদান পাবে। কেউ অণু পরিমাণ অসৎ কর্ম করলে তার প্রতিদান ও পাবে।” আল্লাহ তার প্রতিজ্ঞা রাখবেন কারণ নিশ্চয়ই উনি শ্রেষ্ঠ ওয়াদা রক্ষাকারী।
মসজিদুল আক্বসার দিকে যারা গুলি ছুড়েছে,তারা ধ্বংস হোক। নিষ্পাপ শিশুদের রক্তে মসজিদ রক্তাক্ত করেছে যারা, তাদের মৃত্যু হোক অমানবিক যন্ত্রণায়।
আল্লাহ ছাড় দেন কিন্তু কাউকে ছেড়ে দেন না। সবাইকেই তার একদিন তার কর্মফল ভোগ করতেই হবে!
হে আল্লাহ, রক্ষা করো তোমার ঘর। হে আল্লাহ, রক্ষা করো তোমার অসহায় বান্দাদের।
হে মহামহিম মহাশক্তিধর আল্লাহ,রহম করো সবার উপর। আমাদের ক্ষমা করো, আমাদের রক্ষা করো।
তুমি তো সব দেখছো, তুমি তো সব জানো।

এসব বক্তব্য শেষে ফিলিস্তিন মুসলমানদের জন্য দেয়া ও মোনাজাত করা হয়।ইজরাইলদেরকে ধিক্কার জানানো হয়।