সড়ক মন্ত্রীর এলাকায় সড়কের বেহাল দশা!

0
248

মোঃ আবদুল্যাহ চৌধুরী, নোয়াখালী : নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চার নম্বর চরকাঁকড়া ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডের নুরুজ্জামান পন্ডিত ও হাজী আজিজুল হক সড়কে ২০ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। দীর্ঘ সময়ে রাস্তাটি কাঁচা থাকায় বাসিন্দাদের ভোগান্তির শেষ নেই।

বর্তমানে রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী কয়েক হাজার মানুষ। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার বেহাল দশা থাকলেও এখন পর্যন্ত সংস্কারের কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি কর্তৃপক্ষ।

সড়কটি পাকা করার জন্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, এক কিলোমিটারের বেশি দীর্ঘ এই সড়কে প্রতিদিন হাজারো মানুষ যাতায়াত করে। সড়কটি কাঁচা হওয়ায় কেউ অসুস্থ হলে অনেক কষ্ট করে তাকে চিকিৎসাকেন্দ্রে নিতে হয়।

এই সড়কের আশপাশের চার গ্রামে কয়েক হাজার মানুষের বসবাস। এসব গ্রামের মধ্যে আছে- শান্তিপাড়া, উকিলপাড়া, বিজয়নগর ও সিদ্দিকীয়া বাজার। সড়কটি চরকাঁকড়া ইউনিয়ন ও বসুরহাট পৌরসভার সীমান্তঘেঁষা।

স্থানীয় বাসিন্দা মাসুদ আলম বলেন, এই সড়ক পাকা করা এখন সময়ের দাবি। গত বছর সড়কটি পরিদর্শন করেছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন। তিনি একাধিকবার আশ্বাস দেওয়ার পরও সড়কটি পাকা হয়নি। মাসুদ আলম আরও বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তা দিয়ে যানবাহন তো দূরের কথা হেঁটেও চলাচল করা যায় না। শুকনো মৌসুমেও ভোগান্তির শেষ নেই।

আরেক বাসিন্দা নজরুল ইসলাম বলেন, এই সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে কাঁচা। আমাদের এলাকার মেয়েদের ভালো জায়গায় বিয়ে হচ্ছে না সড়কের কারণে। আমাদের এখানে কেউ অসুস্থ হলে অ্যাম্বুলেন্স আসতে পারে না। সড়কটির জন্য আমাদের কষ্টের শেষ নেই।

চড়কাঁকড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. সফি উল্যা বলেন, নুরুজ্জামান পন্ডিত সড়কটি পাকা করার জন্য কয়েকবার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। কে বা কারা এই সড়কটির নাম কেটে দিচ্ছে। তাই সড়কটি পাকা করা হচ্ছে না।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন বলেন, এই রাস্তাটি করে দেওয়ার জন্য আমি উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলীকে বলেছি। আশা করছি, শিগগির রাস্তাটি পাকাকরণের কাজ শুরু হবে।