সুনামগঞ্জে ১৪ বছরের কিশোরীকে ধর্ষণ, পরিবারের নিরব কান্না

0
50

অরুন চক্রবর্তী, সুনামগঞ্জ
সুনামগঞ্জের মধ্যনগর হাওর এলাকার ১৪ বছরের এক কিশোরীকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে ধর্ষণ করে পানিতে ফেলে দেয়ার ঘটনায় এলাকায় তীব্র প্রতিবাদের ঝড় উঠছে। অসহায় ধর্ষিতার পরিবারে চলছে নিরব কান্না। গতকাল ধর্ষিতার সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে মেডিকেল টেষ্ট সম্পন্ন হয়েছে। ধর্ষনের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে একটি মহল মরিয়া হয়ে উঠলেও শেষ পর্যন্ত এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে বাচ্ছু মিয়া (৩০) নামের এক ব্যক্তিকে আসামি করে গত রোববার বিকেলে মধ্যনগর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা দায়ের করেছেন । অসহায় দরিদ্র পরিবারের এই কিশোরীর ধর্ষনের ঘটনাটি মধ্যযুগীয় বর্বরতাকেও হার মানায় বলে সচেতন মহল মনে করছেন। কিশোরীর পরিবার ও মধ্যনগর থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মধ্যনগর থানাধীন হাওর এলাকার ওই কিশোরী গত শনিবার রাত আটটার দিকে নিজ বসত ঘরের পেছনে লাকড়ি আনতে যায়। এ সময় উপজেলার চামরদানী ইউনিয়নের লাউর দুগনই গ্রামের জুম্মা খার পুত্র ৩ সন্তানের জনক বাচ্ছু মিয়া (৩০) ওই কিশোরীর মুখে মাফলার দিয়ে বেঁধে ফেলে । এক পর্যায়ে প্রাণে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে তাকে সেখান থেকে জোরপূর্বক লাউর দুগনই গ্রামের খানিকটা পূর্ব দিকে বিয়ারগাতি বিলের পাড়ে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। পরে কিশোরীটিকে একই ইউনিয়নের সাজদাপুর গ্রামের সামনের খালের পানিতে বিবস্ত্র অবস্থায় ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় বাচ্ছু মিয়া । পরে কিশোরী খালের পানি থেকে উঠে সে হাঁটতে হাঁটতে সাজদাপুর গ্রামের একটি বাড়িতে যায়। ঐ বাড়ি লোকদের মাধ্যমে মেয়েটির বাবা ও পরিবারের সদস্যরা এ ঘটনার কথা জানতে পারেন। পরে রাতেই তাকে সেখান থেকে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন মেয়েটির পরিবারের স্বজনেরা। গত রোববার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কিশোরীকে ধর্মপাশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে তাকে সাময়িক চিকিৎসা দেওয়া হয়। মেয়েটির বাবা বলেন, আমার মেয়ের ইজ্জত সম্মান বাচ্ছু নষ্ট করছে। আমি তার সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। মধ্যনগর থানার ওসি সেলিম নেওয়াজ বলেন, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে রোববার বিকালে থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামি বাচ্ছু মিয়াকে গ্রেপ্তারের চেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে। ডাক্তারী পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য ওই মেয়েটিকে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গতকাল সোমবার সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে মেডিকেল টেষ্ট সম্পন্ন হয়েছে। সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, গতরাত (রোববার রাত) সাড়ে দশটার সময় সদর হাসপাতালে কিশোরীকে তার স্বজনরা হাসপাতালে ভর্তি করেন। আজ সকালে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। কিশোরীর স্বজনদের অভিযোগ তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে তিন সন্তানের জনক বাচ্চু মিয়া। সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ হাবিবুল্লাহ বলেন, এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে রোববার বিকালে থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামি বাচ্ছু মিয়াকে গ্রেপ্তারের চেষ্ঠা অব্যাহত রয়েছে।