সিরাজগঞ্জে আখ চাষে কৃষকের মুখে হাসি

0
125

সবুজ এইচ সরকার, সিরাজগঞ্জঃ সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে আখ চাষে বাম্পার ফলনে মুখে হাসি,মনে আনন্দ নিয়ে পরিচর্চা কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। উপজেলায় বিগত কয়েক বছর ধরে ব্যাপকহারে আখ চাষ হলেও ন্যায্য দাম পাচ্ছিল না কৃষকেরা। সঠিক দাম না পাওয়া হতাশায় উপজেলার প্রায় কৃষকই ছেড়ে দিয়েছিল আখ চাষ। বর্তমানে পাইকারি-খুচরা বাজারে আখের চাহিদা ও ভালো দাম পাওয়ায় নতুনভাবে আখ চাষ করতে শুরু করেছে অনেকে।
চলতি মৌসুমে আখের জমিতে বন্যার পানি প্লাবিত না হওয়ায়, রোগবালাই ও পোকা মাকড়ের আক্রমণ না থাকায় আখের ফলনও হয়েছে আশানুরূপ। এ বছরে উপজেলার যে সকল কৃষকেরা আখ চাষ করেছেন ভালো ফলন,ভালো দাম পাওয়ায় তাদের মুখে হাসি ফুটেছে বর্তমানে খুচরা বাজারে বড় সাইজের একটি চিবিয়ে খাওয়া আখ ৪০-৫০, মাঝারি সাইজের আখ ৩০-৪০, ছোট সাইজের আখ ২৫-৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, উপজেলায় এ বছর ১৫ হেক্টর জমিতে আখ চাষ করা হয়েছে। হেক্টর প্রতি গড় ফলন ধরা হয়েছে ৪৬.৬ টন। যার মধ্যে অধিকাংশ জমিতেই লক্ষ করা যাচ্ছে চিবিয়ে খাওয়া আখ বনপাড়া গেন্ডারী, তুরাগ গেন্ডারী, বিএসআআই-৪১ ও বিএসআআই আখ-৪২ জাতের আখ চাষ হয়েছে। এ জাতের আখের চারা রোপন থেকে শুরু করে ঘরে তোলা পর্যন্ত ৬-৮ মাস সময় লাগে।
উপজেলার ভদ্রঘাঁট ইউনিয়নের, কুটিরচর ভদ্রঘাঁট , নয়া পাড়া ,কাচারিপাড়া ও চৈরগাঁতী ভদ্রঘাঁট এলাকাতে উল্লেখযোগ্য হারে চিবিয়ে খাওয়া আখের বাম্পার ফলন হয়েছে। ভালো ফলন পাওয়ার জন্য উচ্চ ফলনশীল নতুন জাতের বিএসআরআই আখ ৪১,বিএসআরআই আখ ৪২ আখের আধুনিক চাষাবাদ করা হয়েছে। এ জাতের আখ নরম ,লম্বা, মোটা আকারের এবং বেশ সুস্বাদু-রসালো হওয়ায় এখান থেকে পাইকাররা নিয়ে যাচ্ছে ঢাকা- সহ বিভিন্ন জেলায়।
উপজেলার কুটিরচর ভদ্রঘাট নয়াপাড়া গ্রামের আখ চাষী আমিরুল ইসলাম বলেন, আমি বিএসআরআই এর সহযোগিতায় এবছর ৩ বিঘা জমিতে পিচ-বাও বিক্রি করার জন্য (৪১ও৪২ জাত) এর আখ চাষ করেছি। এবং গুড় উৎপাদনের জন্য ঈশ্বরদী-৩৩ জাতের মুড়ি আখ এক বিঘা(৩৩ শতাংশ) জমিতে চাষ করেছি। প্রতি বিঘা জমিতে খরচ হয়েছে চারা কেনা, হাল চাষ, শ্রমিক খরচসহ সব মিলিয়ে ২৫ হাজার টাকা। এ বছরে আখের চাহিদা ভালো হওয়ায় আশা করছি আখ বিক্রি করে আর্থিক লাভবান হব।
উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আবুল বায়েস এর সাথে কথা বলে জানা যায়, এবছর উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম জমিতে আখ চাষ করা হয়েছে। তবে যে সকল কৃষকেরা আখ চাষ করেছেন তারা লাভবান হচ্ছেন ফলনও এবার আশানুরূপ ভালো হয়েছে।