সিএমএসএমই উদ্যোক্তা অর্থায়ন ও উন্নয়নে আধুনিক কৌশল বিষয়ে সেমিনার

0
25

অনলাইন ডেস্ক : আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেড এর সহযোগিতায় বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক আয়োজিত “ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস: সিএমএসএমই উদ্যোক্তা অর্থায়ন ও উন্নয়নে আধুনিক কৌশলসমূহ” বিষয়ক একটি শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত শনিবার রাজধানীর মিরপুরের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) মিলনায়তনে এই সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

দেশের যে পরিমাণ ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে তার ৮ মিলিয়নই পরিচালিত হয় সিএমএসএমই এর মাধ্যমে, যা জিডিপির ক্ষেত্রে প্রায় ২৫% অবদান রাখে। এছাড়াও দেশের অর্ধেকেরও বেশি কর্মী নিযুক্ত রয়েছে এ খাতে। সিএমএসএমই (কটেজ, মাইক্রো, স্মল এন্ড মিডিয়াম এন্টারপ্রাইজ) খাতের অধীনে পরিচালিত হলেও অর্থায়নের অভাবে এই খাতের অগ্রগতি প্রায়শই বাধা সম্মুখীন হয়। এ সমস্যা সমাধানে করনীয় কী, সেটাই ছিল সেমিনারের আলোচনার বিষয়বস্তু। সেমিনারে আলোচিত বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে সিএমএসএমই-এর উদ্যোক্তাদের আর্থিক স্বল্পতা, ডিজিটাল আর্থিক সেবার উদ্ভাবনে ঘাটতি, নিয়ন্ত্রণ কাঠামোর ক্রটি, ঋণ গ্রহণের দীর্ঘ প্রসেস এবং নতুন করে এই খাতের উদ্যোক্তাদের কিভাবে এগিয়ে নেওয়া যায় ইত্যাদি।
বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক লীলা রশিদ-এর সঞ্চালনায় সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিকাশের সিইসিএও শেখ মো: মনিরুল ইসলাম। সেমিনারে নির্ধারিত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মমিনুল ইসলাম; বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক মো. মেজবাউল হক; ডাচ বাংলা ব্যাংকের এসইভিপি ও সিআরবিও আবিদুর রহমান সিকদার; এসএসএল ওয়্যারলেস লিমিটেড-এর ডিরেক্টর ও সিওও আশিষ চক্রবর্তী; সেবা এক্সওয়াইজেড-এর হেড অব স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং সামিউল কবির।

আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেড-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও মমিনুল ইসলাম বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সিএমএসএমই খাতে যে প্রযুক্তির প্রয়োজন সেটাতে আমরা এখনো যেতে পারি নাই। সেজন্য ডিজিটাল নেটওয়ার্ককে আরও এগিয়ে নিতে হবে। সিএমএসএমই উদ্যোক্তাদের ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে একটা বড় সমস্যা হচ্ছে ট্রেড লাইসেন্স ব্যবস্থা। এই ব্যবস্থা বন্ধ করতে পারলে হয়তো ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা সহজেই ঋণ পাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের জিএম মো. মেজবাউল হক বলেন, সিএমএসএমই-এর উদ্যোক্তাদের আর্থিক স্বল্পতা, ডিজিটাল আর্থিক সেবার উদ্ভাবনে ঘাটতি, নিয়ন্ত্রণ কাঠামোর ক্রটি, ঋণ গ্রহণের দীর্ঘ প্রক্রিয়া-এর সব কিছুর একটি সমাধান হচ্ছে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার করা। বাংলাদেশে ব্যাংক ইতোমধ্যে চারটি সেক্টরে শুধু এই সিএমএসএমই নিয়ে কাজ করছে। এছাড়াও যারা আগে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ- খেলাপি করেছেন তাদেরকে প্রযুক্তির মাধ্যমে চিহ্নিত করতে পারবে।

আলোচনা শেষে সেমিনারের দর্শকদের জন্য প্রশ্ন করার সুযোগ দেওয়া হয়। যেখানে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা নিজেদের বিভিন্ন প্রশ্ন তুলে ধরেন। সেই সমস্যাগুলো সমাধানের বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিয়ে থাকে আলোচকরা।