সার্বভৌমত্ব অক্ষুন রেখে বন্ধুদের সম্মান দেয়া উচিত- মাওলা চৌধুরী

0
52

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রর্ণব মূখার্জির প্রতি সম্মান রেখে গণদলের চেয়ারম্যান এ টি এম গোলাম মাওলা চৌধুরী বলেছেন, সার্বভৌমত্ব অক্ষুন রেখে বন্ধুদের সম্মান দেয়া উচিত। তিনি বলেন, একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা অর্জনে ভারতের অনেক অবদান আছে। তবে মনে রাখতে হবে, বিদেশ কেউ আমাদের প্রভূ নয়। হোক সেটা স্বাধীনতায় অথবা অর্থনৈতিক উন্নয়নে। কিন্তু তাই বলে দেশের মর্যাদা বিকিয়ে দেয়া যাবে না।
১৮ জানুয়ারি রাজধানীর পল্টনে গণদলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বগুড়ার শেরপুর উপজেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদের নের্তৃত্বে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীর যোগদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি সাবেক রাষ্ট্রপতির কথা উলে¬খ করে বলেন, মনে রাখতে হবে এরশাদ একজন বয়জেষ্ঠ্য রাজনীতিবিদ। ৯ বছর দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন। গোলাম মাওলা বলেন, আমরা যদি নিজেদের বয়জেষ্ঠ্যদের সম্মান না দেখাই, তাহলে দেশের মর্যাদা থাকে না। যা রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক শিষ্টাচারের মধ্যে পড়ে না। অনেক রক্তক্ষয় এদেশটি স্বাধীনতা অর্জন করেছে। যার নিজস্ব সার্বভৌমত্ব রয়েছে। গণদল চেয়ারম্যান বলেন, কারো দয়ায় স্বাধীনতা আসেনি। ঘরে বসে মুক্তিযুদ্ধ হয়নি। কেউ বাসায় এসে স্বাধীনতা দান করে যাননি। নিজেদের মধ্যে রাজনৈতিক মতভেদ যাই থাকুক না কেন, রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ক্ষুন করা যাবে না।
তিনি আরো বলেন,এক শ্রেণীর উঠতি ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক কর্মী,অর্থের দাপটে যখন-তখন গণমাধ্যমকর্মী বিশেষ করে সাংবাদিকদের কটাক্ষ করে বক্তব্য দিচ্ছে, যা রাজনৈতিক শিষ্টাচার বর্হিভূত। মনে রাখতে হবে,গণমাধ্যমই দেশের সকল কান্ত্রিকালে সৈনিকের ভূমিকা রাখেন। সংবাদকর্মীদের সম্মান দিয়ে কথা উচতি। মনে রাখবেন রাজনীতি তাদের হাত দিয়েই মানুষের কাছে পৌঁছায়।
গণদল চেয়ারম্যান মাওলা চৌধুরী আরো বলেন, প্রশ্নফাঁস ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে শিক্ষা ব্যবস্থা শেষ করা হয়েছে, মেধার সঠিক মূল্যায়ন এখন হিমাগারে। এখন চলছে, চাকরির প্রশ্নপত্র ফাঁস। এতে করে বেকারত্বকে হতাশায় এবং ধীরে ধীরে মাদকাক্তিতে ঠেলে দেয়া হচ্ছে।
গণদলের যুগ্ম মহাসচিব নুরুল কাদের চৌধুরীর সভাপতিত্বে যোগদান অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন দলের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ আলম হাওলাদার, কেন্দ্রীয় নেতা তাইফুন নাহার রোজি, রাশেদ বিল¬াহ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি আব্দুর রহিম ও সাধারন সম্পাদক বাবুল আহম্মেদসহ আরো অনেকে।
যোগদানকারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শেরপুর উপজেলা জাসদের সাংগঠনিক সাকিল মাহমুদ, উপজেলা জাতীয় পার্টি নেতা মুজাহিদুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম, আবদুললাহ, প্রবীর মোহন্ত, আবদুল হামিদ, সুরাইয়া ফারহানা, আয়েশা খাতুন, ইসতিয়াক আহমেদ ও মিজানুর রহমান।