যশোরে ‘জঙ্গি আস্তানায়’ অভিযান সমাপ্ত, অস্ত্র-বিস্ফোরক উদ্ধার

0
91

যশোর প্রতিনিধি : যশোর সদর উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের পাগলাদহ মাঠপাড়ার আস্তানায় সোমবার রাতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান সমাপ্ত হয়েছে। অভিযানে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

এর আগে আটক করা হয় আস্তানার মালিক মোজাফফর হোসেনকে। রাত পৌনে ৮টার দিকে বাড়িটি ঘিরে রাখার পর অভিযান শুরু হয় এবং রাত ১০টার দিকে তা শেষ হয়।

সোমবার অভিযান শেষে ব্রিফিংকালে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান জানান, গোয়েন্দা তথ্যে বাড়িটির মালিক মোজাফফর হোসেনকে সোমবার সন্ধ্যায় শহর থেকে আটক করা হয়। এরপর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তার বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে ৫০টি গ্রেনেডের বডি, সুইচ ৫০টি, ৩১টি ব্রেকার, ১টি পিস্তল, ৩টি ম্যাগজিন, ৪ রাউন্ড গুলি, ৫লিটার এসিডসহ বিস্ফোরকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার আরও জানান, মোজাফফর জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে, সে নব্য জেএমবির এই অঞ্চলের সংগঠক। তার বাসায় জঙ্গিদের অবাধ যাতায়াত ছিল। এই অভিযানে মোজাফফরকে আটক করা হয়েছে। তবে তার পরিবারের সদস্য স্ত্রীসহ দুই মেয়ে পুলিশের নজরদারিতে রাখা হয়েছে। প্রয়োজন হলে তাদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

এর আগে, রাত পৌনে ৮টার দিকে এই বাড়িটি ঘিরে ফেলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ৬টি ইউনিট। বগুড়া ডিবি, পুলিশ হেডকোয়ার্টারের সদস্য, গোয়েন্দা পুলিশ, সোয়াদ, যশোর পুলিশ এবং বিস্ফোরক ডিসপোজাল ইউনিটসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ছয়টি টিম বাড়িটি ঘিরে ফেলে।

মোজাফফরের প্রতিবেশী সাঈদুর রহমান জানান, বাড়িটির মালিক মোজাফফর প্রায় একযুগ আগে এখানে বাড়িটি নির্মাণ করেন। আধাপাকা টিনসেডের বাড়িতে মোজাফফর স্ত্রী ও দুই মেয়ে নিয়ে থাকেন। তিনি যশোর এমএম কলেজ পুরাতন ছাত্রাবাসের মসজিদের ইমামতি করেন। তার স্ত্রী রাজিয়া কাজ করেন দর্জির।

তিনি আরও জানান, মোজাফফরের তিন মেয়ে। এদের মধ্যে হাবিবার বিয়ে হয়ে গেছে। বাকি দুই মেয়ে ফারজানা (১৪) ও নাঈমাকে (১২) নিয়ে তিনি এই বাড়িতে থাকেন। তার দুই শ্যালক রনজু ও জিল্লুরের এই বাড়িতে যাতায়াত রয়েছে।

প্রসঙ্গত, এনিয়ে গত দুই সপ্তাহর ব্যবধানে যশোরে দুটি জঙ্গি আস্তানার সন্ধান মিলল। এর আগে গত ৮ অক্টোবর যশোর শহরের ঘোপ নওয়াপাড়া রোড এলাকার একটি বাড়িতে জঙ্গি আস্তানার সন্ধান মেলে। রাত ২টা থেকে সেখানে অভিযান শুরু হয়। শ্বাসরুদ্ধকর এ অভিযান ‘মেল্টেড আইস’ শেষ হয় পর দিন বিকাল ৫টার দিকে। অভিযানে সন্দেহভাজন জঙ্গি হাফিজুর রহমান সাগর ওরফে মশিউর রহমানের স্ত্রী ও হলি আর্টিজান হামলার ‘অন্যতম হোতা’ নিহত মারজানের বোন খোদেজা আক্তার খাদিজা তিন সন্তান নিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। সেখান থেকে ৩টি সুইসাইডাল ভেস্ট, কয়েকটি নকশাসহ বিভিন্ন উপকরণ উদ্ধার করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here