বিএনপি হতাশ নয়, বড় ক্ষেত্র তৈরি: মোশাররফ

0
77

অনলাইন ডেস্ক : জাতীয় নির্বাচনে ভরাডুবি আর দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে না পারলেও বিএনপির নেতা-কর্মীরা হতাশ নয় বলে জানিয়েছেন দলের নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন। বলেছেন, তাদের দলের জন্য বড় সুযোগ তৈরি হয়েছে।।
বিএনপি নেত্রীর বন্দি জীবনের বছর পূর্তিতে শুক্রবার রাজধানীতে এক প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশাররফল।
২০১৮ সালের আজকের দিনে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড নিয়ে কারাগারে যান খালেদা জিয়া। নেত্রীর মুক্তির দাবিতে এই এক বছরে বিএনপি নানা কর্মসূচির পাশাপাশি আইনি লড়াই চালায়, তবে সুফল মেলেনি। উল্টো আপিলের শুনানিতে দণ্ড বেড়ে হয় ১০ বছর।
নেত্রীর কিছু হলে দেশে আগুন জ্বালানোর ঘোষণা ছিল বিএনপির। তবে তারা বড় ধরনের কোনো কর্মসূচিতে যায়নি। তার কারাভোগের বছর পূর্তিতেও ঘরোয়া পরিবেশে এই আলোচনাতেই সীমাবদ্ধ ছিল দলটির কার্যক্রম।
খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীরা হতাশ নয়, মনক্ষুন্ন। কারণ তারা ভোট দিতে পারেনি।’
‘বিএনপির সামনে বড় ক্ষেত্র তৈরি হয়েছে। এটা ভোট ডাকাতির সরকার। তাদের পক্ষে এইভাবে বেশি দিন টিকে থাকা সম্ভব হবে না। বেগম খালেদা জিয়াকেও বেশি আটকে রাখা সম্ভব হবে না।’
আলোচনায় ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে যাওয়ার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ। এ বিষয়ে মোশাররফ বলেন, ‘আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা নির্বাচনে গিয়েছিলাম। দেশের মানুষ আমাদের ভোট দেয়ার জন্য প্রস্তুত ছিল। সরকারের কাছে এই কথা গোপন ছিল না। সরকার মনে করছে জনগণ ভোট দিতে পারলে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আওয়ামী লীগকে উৎখাত করবে। তাই তারা ২৯ তারিখে রাতেই ভোট দিয়েছে। ভোট যা হয়েছে এটা অস্বাভাবিক।’
বিএনপির ঘুরে দাঁড়ানোর তাগিদ দিয়ে মোশাররফ বলেন, ‘নেতাকর্মীদের পুনর্বাসন করতে হবে। যেসব ভুল আছে তা অবিলম্বে সংশোধন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঐক্যবদ্ধভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হবে।’
যারা প্রার্থী ছিলেন তাদেরকে সারাদেশের নেতাকর্মীদের পাশে দাঁড়ানোরও নির্দেশ দেন বিএনপি নেতা। বলেন, ‘যারা দাঁড়াবে না তাদের আমরা মনিটরিং করব।’
খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন নিয়ে মোশাররফ বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে সম্মান জানাতে পারে না সরকার। কারণ এরা স্বৈরাচার। কোনো নির্বাচন ছাড়া এই সরকার ক্ষমতায় আসে ২০১৪ সালে। এই জন্যই তারা আমাদের কর্মসূচিতে কর্ণপাত করেনি।’
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান তার নেত্রীকে মুক্ত করতে এবং ‘গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধারে’ ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের তাগিদ দেন। বলেন, ‘আবার তাকে (খালেদা জিয়া) এ দেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করব এই শপথ নেই।’
স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের শীর্ষ নেতারা বক্তব্য রাখেন।
স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা বক্তব্য রাখেন।