প্রধানমন্ত্রীর বিশ্বাস-আস্থা অর্জন করব: আইজিপি

0
140

অনলাইন ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বাস করে দায়িত্ব দিয়েছেন জানিয়ে নতুন পুলিশ প্রধান বলেছেন, সরকার প্রধানের সে বিশ্বাস অর্জনে সর্বোচ্চ চেষ্টাই করবেন তিনি।
মহাপুলিশ পরিদর্শক বা আইজিপি হিসেবে নিয়োগের পর প্রথম সংবাদ সম্মেলনে বৃহস্পতিবার এসব কথা বলেন জাবেদ পাটোয়ারি। সংবাদ সম্মেলনটি হয় পুলিশ সদর দপ্তরের মিডিয়া সেন্টারে।
নতুন আইজিপি বলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিও গভীর শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। তিনি আমাকে বিশ্বাস করে দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করব তার বিশ্বাস এবং আস্থা অর্জন করব।’
দেশে কোনো কৃত্রিম সংকট তৈরি করার চেষ্টা হলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে বলেও সতর্ক করে দেন জাবেদ পাটোয়ারি।
বিদায়ী আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক বুধবার নতুন আইজীবীকে বরণ অনুষ্ঠানে বলেছেন, একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টি তার জন্য চ্যালেঞ্জ হবে। এ বিষয়ে জাবেদ পাটোয়ারি বলেন, ‘প্রতিটি দিনই আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ। যখন যেই পরিবেশ হবে তখনই সেই অবস্থায় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
পুলিশ বাহিনীর মান বৃদ্ধিই লক্ষ্য
নতুন আইজিপি বলেন, দায়িত্ব পালনে পুলিশের সেবার মানোন্নয়ন করতে চান তিনি। বলেছেন, সদস্যদের ব্যক্তিগত অপরাধের দায় বাহিনী নেবে না, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান দেয়ার কথা জানান তিনি।
আইজিপি বলেন, ‘নিয়মনীতির মধ্য থেকে পুলিশের মানবৃদ্ধির জন্য আমরা কাজ করতে চেষ্টা করব। আমরা স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার চেষ্টা করব।’
‘দুই লাখ পুলিশ সদস্যদের মধ্যে কতিপয় সদস্য অপরাধে জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধে পুলিশের আইনে এবং দেশের প্রচালিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
পুলিশিং নারীবান্ধব হবে-এমন লক্ষ্যের কথাও জানান নতুন আইজিপি।
পুলিশ প্রধান বলেন, ‘সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের মূল জায়গাটি হল থানা। গতকাল (বুধবার) আমরা অফিসারদের সঙ্গে মিটিং করেছি। যেভাবে সেবার মান বৃদ্ধি করা যায় সেক্ষেত্রে আমরা একটি পরিকল্পনা করছি। সেটাও আপনাদের জানানো হবে।’
‘আমাদের মূল দায়িত্ব মানুষের জান মালের নিরাপত্তা দেওয়া। বাংলাদেশ পুলিশ আইনের মধ্য থেকে সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থানে থেকে মানুষের জানমালের নিরাপত্তার বিধান করবে।’
জাবেদ পাটোয়ারি বলেন, ‘বাংলাদেশের মত একটি উন্নয়নশীল দেশে কোন সহজ নয় তবে কঠিনও নয়। আমি আপনাদের মাধ্যমে সকল শান্তিপ্রিয় নাগরিকদের সহযোগিতার আহ্বান জানাচ্ছি।’
বিশেষ নজরে মাদক নির্মূল
বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা র‌্যাংক ব্যাচ পরিয়ে দেয়ার সময় মাদক নির্মুলে কাজ করকে বিশেষভাবে নির্দেশ দিয়েছেন বলেও জানান আইজিপি।
বলেন, ‘পুলিশ জঙ্গিবাদের মতই মাদক নির্মূলে কাজ করে যাব। গতকাল যখন আমাকে র‌্যাংক ব্যাচ পরানো হয়েছিল তখনই আমাকে বলা হয়েছিল মাদকে নির্মূল আমাদের কঠোর হতে হবে। সেক্ষেত্রে মাদক নির্মূলে আমরা থাকব জিরো টলারেন্সে।’
‘জঙ্গিবাদ দমনে মতই মাদক নির্মূলে নিয়মিত অভিযান পরিচলনা করব।’
জাবেদ পাটোয়ারি বলেন, ‘মাদক নির্মূলে মাদকের চাহিদা বন্ধ করতে হবে। এটা শুধু পুলিশের একার দায়িত্বে হবে না। মাদক গ্রহীতা, মাদক বহনকারী সবারই ভূমিকা রয়েছে।’
গণমাধ্যমের সহায়তা কামনা
দায়িত্ব পালনে গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গেও কাজ করতে চান আইজিপি। বলেন, ‘পুলিশিং সারা বিশ্বে একটি চ্যালেঞ্জিং বিষয়। সাংবাদিকতাও সারাবিশ্বে চ্যালেঞ্জিং বিষয়। আপনারা এবং আমরা একে অপরের পরিপূরক হিসেবে কাজ করছি।’
‘আপনারা (সাংবাদিক) আগেও যেভাবে পুলিশকে সহযোগিতা করেছেন, আমি সেইভাবেও আপনাদের কাছ থেকে সহযোগিতা চাইছি। আপনারাও সর্বাত্মক সহযোগিতা পাবেন।’