পার্লামেন্ট জার্নালিস্টদের ফল উৎসবে স্পিকার

0
17

অনলাইন ডেস্ক:প্রতি বছরের মতো এবারও দেশীয় ফলের সমাহার নিয়ে ফল উৎসব করেছে বাংলাদেশ পার্লামেন্ট জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন। বরাবরের মতো এবারও এবারও দেশীয় ২৮টি ফলে সমাহারে সাজানো হয় এই ফল উৎসব। এর মধ্যে ছিল আম, কাঠাল, আনারস, সবরি কলা, জাম, লটকন, আমড়া, তাল, কামরাঙ্গা, ডেউয়া, পেঁপে, লেবু, বাঙ্গী, তরমুজ, টমেটো, বোম্বাই মরিচ, পেয়ারা, অরবড়ই, করমচা, আমলকি, আনারস, জাম্বুরা, শসা, খেজুর, মরমইরা, গাঁজর, বিলাতী গাব, জামরুল ইত্যাদি।
মঙ্গলবার মাগররিবের নামাজের বিরতিতে ফল উৎসবে যোগ দেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ও ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ পার্লামেন্ট জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের এই ফল উৎসব এখন সংসদের ঐতিহ্য হয়ে উঠেছে। এর শুরু হয়েছে বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ যখন এই সংসদে স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন তখন থেকে। তারপর থেকে ধারাবাহিকভাবে এই উৎসব চলছে। দেশে যত ধরণের ফল হয়, তারই এক চমৎকার সমাহার আজকের এই আয়োজন। বাংলাদেশ পার্লামেন্ট জার্নালিস্টস অ্যাসোসিয়েশনের চলার পথ এখন অনেক প্রসার হয়েছে। এই কমিটিতে ১০০ এর অধিক সদস্য রয়েছে। সংসদ বিটের সংবাদিকরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। যতক্ষণ অধিবেশন চলে তাদের কিন্তু ছুটি নেই। আমরা সংসদ সদস্যদের যেমন কোন ছুটি দেই না, ঠিক তেমনিভাবে তাদেরও কোনো ছুটি নেই। যারা এই বিটে কাজ করেন তারা তো সংসদের সাথে ওতপ্রতভাবে জড়িত।
সবশেষে সংসদকে শক্তিশালী করা এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে আরও শক্তিশালী করার জন্য সাংবাদিকদের নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান স্পিকার।
ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, সংসদে যে শব্দ স্পিকার কর্তৃক এক্সাপান্স হয়ে যায়। সেই শব্দ খবরে প্রকাশের বিষয়টি পুনঃবিবেচনার আহ্বান জানাচ্ছি।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পার্লামেন্ট জার্নালিস্ট’স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি দৈনিক জনকণ্ঠের বিশেষ প্রতিনিধি উত্তম চক্রবর্তী। আরও বক্তব্য রাখেন- সংসদ সদস্য ও অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শফিকুর রহমান, সাবেক সভাপতি শাহজাহান সরদার প্রমুখ। সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক নিখিল ভদ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।