নাজিবের বিরুদ্ধে দুর্নীতিসহ একাধিক অভিযোগ গঠন

0
35

অনলাইন ডেস্ক:  গ্রেপ্তারের একদিন পরই মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে দুর্নীতিসহ একাধিক অভিযোগ গঠন করেছে দেশটির হাইকোর্ট। এর মধ্যে মালয়েশিয়ার সরকারি তহবিল ওয়ান এমডিবি দুর্নীতি মামলায় বুধবার সকালে তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ গঠন করা হয়।

দুর্নীতির দায়ে মঙ্গলবার বিকালে নাজিবকে তার কুয়ালালামপুরের বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে দুর্নীতি দমন কমিশনের বিশেষ টাস্কফোর্সের কর্মকর্তারা। তবে দুর্নীতির এসব অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছেন নাজিব।

গ্রেপ্তার পর টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট দিয়ে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ বিশ্বাস না করতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান নাজিব। বলেন, ‘আমি আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগই পাইনি।’ খবর চ্যানেল নিউজ এশিয়ার।

নাজিবের বিরুদ্ধে মোট চারটি অভিযোগ গঠন করা হয়। এর মধ্যে তিনটি বিশ্বাস ভঙ্গের এবং একটি ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ আনা হয়। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার ২০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে মালয়েশিয়াকে শীর্ষ অর্থনীতির দেশে পরিণত করার লক্ষ্য নিয়ে নাজিব প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় ওয়ানএমডিবি তহবিল সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু করেছিলেন। কিন্তু পরে ওই তহবিলের ৭০ কোটি ডলার আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। এরপর যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশে ওই অর্থ পাচারের অভিযোগ নিয়ে তদন্ত শুরু হয়। তবে নাজিব বরাবরই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

মালয়েশিয়ার আদালত প্রধানমন্ত্রী নাজিবকে অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগ থেকে মুক্তি দিয়েছিল। কিন্তু গত মে মাসের নির্বাচনে সরকার বদলের পর নতুন প্রধানমন্ত্রী মাহথির মোহাম্মদ ক্ষমতায় এসে নতুন করে ওই দুর্নীতি তদন্তের নির্দেশ দেন।

গত মাসে কুয়ালালামপুরে নাজিবের বিলাসবহুল ভবন এবং মূল বাড়িসহ তার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছয়টি স্থানে অভিযান চালিয়ে নগদ অর্থ, গয়না, হাতব্যাগসহ ২৭ কোটি ৩০ লাখ ডলার সম্পদ জব্দ করা হয়, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা দুই হাজার ২৩৮ কোটি ৭ লাখ টাকা। জব্দ করা সম্পদের মধ্যে ১২ হাজার পিস গয়না, বিভিন্ন ব্যাগে প্রায় তিন কোটি ডলারের সমমূল্যের ২৬টি দেশের মুদ্রা, ৪২৩টি ঘড়ি এবং ২৩৪ জোড়া সানগ্লাস ছিল। এছাড়া ছিল নামিদামি নকশাকারদের তৈরি খুব দামি ও শৌখিন জিনিস।