কিশোরী পেটানো পুলিশের বিরুদ্ধে নেয়া হয়নি কোনো ব্যবস্থা

0
16

অনলাইন ডেস্ক : বঙ্গভবনের সামনে এক কিশোরীকে কয়েকজন পুলিশ সদস্যের পিটুনির ঘটনায় সমালোচনার ঝড় বয়ে গেলেও তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বাহিনীটি। এমনকি সড়কে পেটানো সদস্যদের পক্ষেই কথা বলছেন কর্মকর্তারা।
গত ৭ ফেব্রুয়ারি ওই কিশোরীকে নির্যাতনের ঘটনাটি মোবাইল ফোনে ধারণ করেন একজন পথচারী। এরপর সেটি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন তিনি। মুহূর্তেই সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। আর পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবি জানাতে থাকে মানুষ।
তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে এ বিষয়ে আর কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।
যে স্থানটিতে ঘটনাটি ঘটেছে, সেটি বঙ্গভবনের প্রবেশমুখের পাশে। মওলানা ভাসানী স্টেডিয়াম পেরিয়ে সোজা রাস্তাটি শিল্প ব্যাংকের সামনে চলে গেছে, একটি বঙ্গভবনের দিকে গেছে। ঠিক এই টার্ন নেওয়ার জায়গায় এক কিশোরী রাস্তা অতিক্রম করার চেষ্টা করে। তাকে সেখানের দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা ক্রমাগত শারীরিকভাবে আঘাত করতে থাকে। একসময় কিশোরীটি রাস্তায় পড়ে গেলেও তার ওপর চড়াও হয় পুলিশ সদস্য।
একজন পথচারী ভিডিওটি করছিলেন, পরে পুলিশ সদস্যরা এসে তাকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে তাকে ধমক দিয়ে ওই এলাকা ছাড়তে বাধ্য করা হয়।
ভিডিওটিতে দেখা যায়, মেয়েটির হাতে একটি কালো ব্যাগ। সেটি খোলা। ভেতরে কিছু কাপড় আছে। পুলিশের একজন কর্মকর্তা মেয়েটিতে সজোরে চড় মারছেন। সে সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ট্রাফিক পুলিশের একজন কনস্টেবল।
মেয়েটিকে সড়কের ওপর থেকে সরিয়ে দেওয়ার পর এক পুলিশ সদস্য ভিডিও করা লোকটির দিকে এগিয়ে যান। বলেন, ‘এই মিয়া এই কী করছেন?’ জবাবে ওই ব্যক্তি বলছিলেন, ‘আপনারা মারতেছেন, আমি ভিডিও করছি।’
তখন পুলিশের ওই সদস্য ভিডিও ধারনকারীকে বলছিলেন, ‘পাগল নাকি?’ পরে পুলিশ সদস্য তাকে ধমক দিয়ে বলেন, ‘যান এখান থেকে, যান’।
এরপর মোবাইল ফোনের ক্যামেরাটি আর পুলিশের দিকে তাক করাতে পারেননি ওই ব্যক্তি।
ভিডিওটি কে করেছেন বা কে প্রথম ফেসবুকে শেয়ার দিয়েছেন তা এখনও জানা যায়নি। এমনকি কেন মেয়েটিকে মারা হয়েছে সেটাও জানা যায়নি।